Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

প্রকৃতিপাঠ: এখন অশোক ফোটার দিন

অশোক মাঝারি আকৃতির চিরসবুজ বৃক্ষ। অশোক গাছের আদি নিবাস ভারতের দাক্ষিণাত্য মালভূমির কেন্দ্রীয় অঞ্চল। এছাড়া ভারতীয় উপমহাদেশের পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলের পশ্চিমঘাটের মধ্যবর্তী অংশে বেশি দেখা যায়। অশোক গাছের বৈজ্ঞানিক নাম Saraca asoca, এটি Fabaceae গোত্রের Caesalpinioideae উপগোত্রের বৃক্ষ। অশোকের অন্যান্য নাম অঞ্জনপ্রিয়া, অপশোক, কঙ্গেলি, কর্ণপূরক, কেলিক, চিত্র, দোষহারী, নট, পল্লবদ্রুপ, প্রপল্লব, পিণ্ডিপুষ্প, বঞ্জুলদ্রুম, বিচিত্র, বিশোক, মধুপুষ্প, রক্তপল্লবক, রাগীতরু, শোকনাশ, সুভগ, স্মরাধিবাস, সীতা অশোক, হেমপুষ্প, হিমাপুষ্পা ইত্যাদি।

অশোক গাছ পঁচিশ থেকে তিরিশ মিটার উঁচু হয়। পাতা যৌগিক, একটি পাতায় দশটি পত্রক থাকে, পাতার রং গাঢ় সবুজ। লম্বা, চওড়া ও বর্শা ফলকাকৃতির। কচিপাতা নরম, ঝুলন্ত ও তামাটে। বসন্তকাল ফুল ফোটার সময়। আষাঢ়ের শুরু পর্যন্ত গাছে ফুল থাকে। ফুলগুলি ছোট, মঞ্জরীতে অনেক ফুল থাকে। পুংকেশর দীর্ঘ। অশোক বৃক্ষের ডালপালা ঘন পল্লবময়। কাণ্ডের গা থেকেও মঞ্জরীদণ্ড উৎপন্ন হতে পারে এবং তা থেকে ফুল ফোটে। ফুলের রং কমলা থেকে লাল। ফল শিম জাতীয়, মাংসল ও লাল। ফলে বেশ কিছু খয়েরি রঙের বীজ থাকে। অশোকের অনেক ভেষজ গুণও রয়েছে। শুকনো ফুল রক্ত আমাশয়ে এবং বীজ মূত্রনালির রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।

ভারতীয় সংস্কৃতি, ইতিহাস এবং পুরাণে অশোক গাছের তাৎপর্য রয়েছে। রামায়ণের কাহিনি পড়া প্রায় প্রত্যেক ভারতীয় ‘অশোক বন’ বা ‘অশোক বটিকা’ সম্পর্কে জানেন, যেখানে রাক্ষসরাজ রাবণ সীতাকে বন্দি করে রেখেছিলেন। সীতাকে হরণের পর রাবণ অশোক কাননেই রেখেছিলেন। কারণ, সীতা রাবণের প্রাসাদে থাকতে অস্বীকার করেছিলেন এবং অশোক বনে থাকার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন। এখানেই একটি অশোক গাছের নীচে রামভক্ত হনুমান সীতার সঙ্গে দেখা করেছিলেন। সেই অশোক কাননটির অবস্থান নাকি বর্তমান শ্রীলঙ্কায় সিথা এলিয়া নামক অঞ্চলের হাকগালা বোটানিক্যাল গার্ডেনে।

গৌতম বুদ্ধের জীবনের সঙ্গে বিভিন্ন গাছের সম্পর্ক সর্বজনবিদিত। বুদ্ধদেবের জন্ম ৫৬৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে। একটি অশোক বৃক্ষের ছায়াতেই গৌতম বুদ্ধের জন্ম। এটি নিশ্চিত করেছিলেন মহান চিনা পর্যটক হিউয়েন সাং, যিনি ভারতে এসেছিলেন (৬৩০-৬৪৫ খ্রিস্টাব্দ)। তাঁর বর্ণনাতেও গৌতম বুদ্ধের জন্মস্থান সম্পর্কে প্রচলিত তথ্যটির সমর্থন রয়েছে। সবমিলিয়ে অশোক গাছ হিন্দুদের পাশাপাশি বৌদ্ধদের কাছেও অত্যন্ত পবিত্র এবং বিভিন্ন বৌদ্ধবিহারে এই গাছের দেখা মেলে।

প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যে, বিশেষত, ধর্মীয় এবং প্রণয়কাব্যে প্রায়শই অশোক গাছের উল্লেখ পাওয়া যায়। সংস্কৃত সাহিত্যে কমপক্ষে ১৬টি ভিন্ন নামে অশোক গাছ বা অশোক ফুলের উল্লেখ রয়েছে। বিখ্যাত সংস্কৃত নাট্যকার ও কবি কালিদাস তাঁর ‘মালবিকাগ্নিমিত্রম’ নাটকে এই গাছটিকে অমর করে রেখেছেন, যেখানে অনূঢ়া নারীর পদস্পর্শে অশোক গাছে ফুল ফোটে। এছাড়াও, পুরাণ বর্ণিত কামদেবের পঞ্চশরের অন্যতম শর এই অশোক ফুলে সজ্জিত।

অশোক ফুল ফুটলে মিষ্টি গন্ধে চারপাশ ভরে যায়। শারদীয় দুর্গাপুজোয় অশোক গাছের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। অশোকের শাখা ছাড়া দুর্গাপূজার নবপত্রিকাকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দেওয়া যায় না। চৈত্র মাসের শুক্লা ষষ্ঠীতে মায়েরা পুত্রের মঙ্গলকামনা করে অশোক ফুল দিয়ে ‘অশোক ষষ্ঠী’ পূজা করেন। কাব্য-সাহিত্যে অশোক-বন্দনা রয়েছে বিস্তর। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অনেক কবিতায় ফিরে ফিরে এসেছে অশোক। তার একটিতে যেন মহাকবি কালিদাসের বয়ানেরই প্রতিচ্ছবি: আসত তারা কুঞ্জবনে/ চৈত্র-জ্যোৎস্না-রাতে,/ অশোক-শাখা উঠত ফুটে/ প্রিয়ার পদাঘাতে।’

চিত্র : গুগল

প্রকৃতিপাঠ : বিলুপ্তপ্রায় কর্পূর গাছ

প্রকৃতিপাঠ: স্নিগ্ধ ছায়ার তমাল গাছ

প্রকৃতিপাঠ: দৃষ্টিনন্দন ও সুগন্ধী নাগলিঙ্গম

প্রকৃতিপাঠ: খইয়ে বাবলা ফলের গাছ

প্রকৃতিপাঠ: চিনেবাদাম চিনে নিন

প্রকৃতিপাঠ: রসময়ী খেজুর গাছ

প্রকৃতিপাঠ: তাহার নামটি রঞ্জনা

প্রকৃতিপাঠ: উপকারী সোনাপাতা

প্রকৃতিপাঠ: বসন্তের শ্বেত শিমুল

প্রকৃতিপাঠ: পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় বৃক্ষ ছাতিম

প্রকৃতিপাঠ: ফলসার বহুবিধ গুণ

5 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

আবদুল্লাহ আল আমিন

মাহমুদ দারবিশের কবিতায় ফিলিস্তিনি মুক্তিসংগ্রাম

যুবা-তরুণ-বৃদ্ধ, বাঙালি, এশিয়ান, আফ্রিকান যারাই তাঁর কবিতা পড়েছেন, তারাই মুগ্ধ হয়েছে। তাঁর কবিতা কেবল ফিলিস্তিনি তথা আরব জাহানে জনপ্রিয় নয়, সারা বিশ্বের ভাবুক-রসিকদের তৃপ্ত করেছে তাঁর কবিতা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বাধিক পঠিত নন্দিত কবিদের একজন।

Read More »
সুজিত বসু

সুজিত বসুর কবিতা: কিছু কিছু পাপ

শৈবাল কে বলেছ তাকে, এ যে বিষম পাথরে/ সবুজ জমা, গুল্মলতা পায়ে জড়ায়, নাগিনী/ হিসিয়ে ফণা বিষের কণা উজাড় করো আদরে/ তরল হিম, নেশার ঝিম কাটে না তাতে, জাগিনি

Read More »
সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »