Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

বালি ও ফেনা: তৃতীয় কিস্তি

কাহলিল জিব্রান

ভাষান্তর: অনিন্দিতা মণ্ডল

৪৩

আমি যা বলি তার অর্ধেকই অর্থহীন। তবু বলি, যাতে বাকি অর্ধেক তোমার কাছে পৌঁছয়।

৪৪

রসবোধ মানসিক ভারসাম্যের পরিচয়।

৪৫

মানুষ যখন আমার সোচ্চার ভুলগুলোর প্রশংসা করে আর নিরুচ্চার গুণের নিন্দা করে তখন একাকিত্ব জন্ম নেয়।

৪৬

জীবন যখন হৃদয়ের গান গাওয়ার সুযোগ পায় না তখন সে মননের কথা বলতে একজন দার্শনিকের জন্ম দেয়।

৪৭

সত্য সবসময় সঙ্গে থাকে, তবে তা কখনও কখনও উচ্চারিত হয়।

৪৮

সহজাত যা কিছু তাই নিরুচ্চার থাকে। অর্জিত যা, তাই সোচ্চার।

৪৯

আমার জীবনের কণ্ঠস্বর তোমার শ্রুতিতে পৌঁছতে পারে না। তবু, এসো কথা বলি, তাহলে আমরা একা বোধ করব না।

৫০

যখন দুজন নারী কথা বলে তারা আসলে কিছুই বলে না। যখন একজন নারী কথা বলে সে তখন জীবনের সব কিছু প্রকাশ করে।

৫১

ষাঁড়ের চেয়ে ব্যাং বেশি জোরে ডাকে ঠিক, কিন্তু তারা জমিতে হাল দিতে পারে না, সুরাশালায় চাকা ঘোরাতে পারে না, এবং তাদের চামড়া থেকে জুতোও তৈরি হয় না।

৫২

বোকারাই বাচালকে হিংসে করে।

৫৩

শীত যদি বলে ‘বসন্তের বাস আমার হৃদয়ে’— তবে সে-কথা কে বিশ্বাস করবে?

৫৪

প্রতিটি বীজই একটি আকাঙ্ক্ষা।

৫৫

চোখ চেয়ে দেখো। প্রতিটি প্রতিবিম্বতে তুমি নিজেকেই খুঁজে পাবে। যদি কান খুলে শোনো তবে প্রতি কণ্ঠে নিজের কণ্ঠস্বর শুনতে পাবে।

৫৬

সত্যকে আবিষ্কার করতে দুজনকে প্রয়োজন। একজন উচ্চারণ করবে আর একজন তা অনুভব করবে।

৫৭

যদিও শব্দের তরঙ্গ অনন্তকাল আমাদের আচ্ছন্ন করছে, তবু গভীরে অতল নৈঃশব্দ্য।

৫৮

বেশিরভাগ মতবাদ জানলার শার্সির মতো। আমরা তার মধ্যে দিয়ে সত্যকে দেখতে পাই। কিন্তু একই সঙ্গে তা আমাদের সত্য থেকে বিচ্ছিন্ন করে।

৫৯

এসো লুকোচুরি খেলি। তুমি আমার অন্তরে লুকোলে খুঁজে পাওয়া শক্ত হবে না। কিন্তু যদি তুমি নিজেকে নিজের খোলসের মধ্যে লুকিয়ে রাখো তবে কেউই তোমাকে খুঁজে পাবে না।

৬০

নারী তার মুখের হাসি দিয়ে সত্য ঢাকতে পারে।

৬১

সেই দুঃখী হৃদয় কী মহান যে আনন্দিত চিত্তে আনন্দের গান গায়!

৬২

যে ব্যক্তি নারীর হৃদয় জানেন, প্রতিভা চিনতে পারেন, বা নৈঃশব্দ্যের রহস্য উদ্ঘাটন করতে পারেন, তিনিই রাতের শেষে একটি সুন্দর স্বপ্ন থেকে জেগে প্রাতঃরাশে বসতে পারেন।

৬৩

আমি সবার সঙ্গে হাঁটব। দর্শক হয়ে মিছিল দেখব না।

৬৪

যে তোমাকে সেবা করে তাকে সোনা দিয়ে ঋণ শোধ করতে পারো না। হয় তাকে হৃদয় দাও নয় তার সেবা করো।

>>> ক্রমশ >>>
চিত্রণ: চিন্ময় মুখোপাধ্যায়

***

লেখক পরিচিতি

কাহলিল জিব্রান (Kahlil Gibran) একজন লেবানিজ-আমেরিকান কবি, শিল্পী ও দার্শনিক। ১৮৮৩ সালে লেবাননে জন্ম। বাল্য কেটেছে জন্মভূমিতে। আমেরিকার বোস্টনে আসেন কৈশোরে। আবার লেবাননে শিক্ষালাভ করতে যান। তাঁর দর্শনে মধ্যপ্রাচ্যের সুফী ভাবধারার স্পষ্ট ছাপ। সুফী মরমিয়াদের মতই তাঁর দর্শনে বালির ধারা যেন প্রাণের ধারা। প্রাচ্য দর্শনের মধ্যে ইসলামের একেশ্বরবাদের সঙ্গে ঔপনিষদিক দর্শনের প্রভাবও দেখতে পাওয়া যায়। তিনি আরবি ও ইংরেজি দুই ভাষাতেই লিখেছেন। তাঁর প্রথম গ্রন্থ ‘দ্য প্রফেট’ প্রকাশ হয় ১৯২৩ সালে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পরে প্রকাশিত এই লেখাটির মধ্যে প্রচলিত পাশ্চাত্য দর্শনের বিপ্রতীপ একটি কণ্ঠস্বর শোনা গিয়েছিল। প্রফেটের সমগোত্রীয় লেখা ‘স্যান্ড অ্যান্ড ফোম’। দর্শনকাব্য বলা চলে। পুস্তকের অলংকরণ তাঁর নিজের করা। এটি ১৯২৬ সালে প্রকাশিত।

আরও পড়ুন…

বালি ও ফেনা প্রথম কিস্তি

বালি ও ফেনা: দ্বিতীয় কিস্তি

বালি ও ফেনা: চতুর্থ কিস্তি

বালি ও ফেনা: পঞ্চম কিস্তি

5 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

আবদুল্লাহ আল আমিন

মাহমুদ দারবিশের কবিতায় ফিলিস্তিনি মুক্তিসংগ্রাম

যুবা-তরুণ-বৃদ্ধ, বাঙালি, এশিয়ান, আফ্রিকান যারাই তাঁর কবিতা পড়েছেন, তারাই মুগ্ধ হয়েছে। তাঁর কবিতা কেবল ফিলিস্তিনি তথা আরব জাহানে জনপ্রিয় নয়, সারা বিশ্বের ভাবুক-রসিকদের তৃপ্ত করেছে তাঁর কবিতা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বাধিক পঠিত নন্দিত কবিদের একজন।

Read More »
সুজিত বসু

সুজিত বসুর কবিতা: কিছু কিছু পাপ

শৈবাল কে বলেছ তাকে, এ যে বিষম পাথরে/ সবুজ জমা, গুল্মলতা পায়ে জড়ায়, নাগিনী/ হিসিয়ে ফণা বিষের কণা উজাড় করো আদরে/ তরল হিম, নেশার ঝিম কাটে না তাতে, জাগিনি

Read More »
সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »