Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

ছবিবৃত্তান্ত

পুরো নাম ছায়াছবি, ছোট করে ছবি। সেই ছবিকে আজকের স্তরে তুলে ধরতে যুগ যুগ ধরে মানুষের যে নিষ্ঠা ও পরিশ্রম জড়িয়ে আছে, তা ভাবতে বসলে বিস্ময়ে হতবাক হতে হয়। এর পেছনে আছে কত সাফল্য, ব্যর্থতা, সুখদুঃখ ও নানান মজার কাহিনি। ছবির দুনিয়ার সেইসব অনবদ্য গল্পকাহিনি নিয়ে ধারাবাহিক ‘ছবিবৃত্তান্ত’।

পঞ্চম কিস্তি

চার্লস প্যাথে (১৮৬৩-১৯৫৭) তৈরি করেন নতুন ক্যামেরা। লিওন আর্নেস্ট গাউমন্ট (১৮৬৪-১৯৪৬) ল্যুমিয়েরদের চেয়ে উন্নতমানের ক্যামেরা তৈরি করেন। জর্জ মেলিয়েস (১৮৬১-১৯৩৮) ল্যুমিয়েরদের কাছে প্রত্যাখাত হয়ে আর. ডব্লিউ. পল-এর কাছ থেকে প্রজেক্টর কেনেন, তৈরি করেন ক্যামেরা। প্রথমে যদিও তিনি ল্যুমিয়েরদের চেয়ে অনেক বড় মাপের ফিল্ম ব্যবহার করেন তবে পরে এডিসনের মাপকেই গ্রহণ করেন।

মেলিয়েস ছিলেন ধনীর পুত্র, লেখাপড়ায় ভাল, সামরিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তিনি ম্যাজিশিয়ান ও শিল্পীও বটে। ম্যাজিক, মূকাভিনয় ও প্রদর্শন কলাকৌশলের মিশ্রণে ফরাসি থিয়েটারে তিনি এক অভিনবত্বের ঢেউ তোলেন। তাঁর তৈরি ফিল্ম স্টুডিওকেই বাস্তবিক প্রথম স্টুডিও বলা চলে।

Montreuil-sous-Bois স্টুডিওতে ১৮৯৬-১৯৩৪ সাল পর্যন্ত ৩ থেকে ২০ মিনিটের এক হাজার ছবি তোলেন। ১৯২৩ সালে তিনি তাঁর সমস্ত ছবির নেগেটিভ বিক্রি করে দিতে বাধ্য হন। দুঃখের বিষয় মাত্র ৫০টি ছবি বেঁচে আছে।

হারিয়ে গেলেন মেলিয়েস। ১৯২৯-এ এক সাংবাদিক প্যারিস রেলওয়ে স্টেশনে তাঁকে খেলনা ও লজেন্স ফেরি করতে দেখেন। মেলিয়েস মারা যান ১৯৩৮ সালে। আর পোর্টারও সামান্য এক কারখানার শ্রমিক হিসেবে মারা যান ১৯৩৫-এ।

ইংল্যান্ডের জর্জ অ্যালবার্ট স্মিথ (১৮৬৪-১৯৫৯) ১৮৯৭ সালে ডাবল-এক্সপোজার-এর পেটেন্ট নিলেন। ডাবল-এক্সপোজারের প্রথম ব্যবহার দেখা গেল ‘The Corsican Brothers’ (১৮৯৮), ‘Cinderella and the Fairy Godmother’ (১৮৯৮), ‘Faust and Mephistopheles’ (১৮৯৮) ইত্যাদি ছবিতে।

১৯০০ সালে জি. এ. স্মিথ-ই প্রথম Extreme close up-এর ব্যবহার করেন তাঁর মজার ছবি ‘Grandma’s Reading Glass’-এ।

১৯০১ সালে tripod বা তেপায়াতে ক্যামেরা বসিয়ে হাতলের সাহায্যে দিক পরিবর্তন করতে পারায়, পাওয়া গেল প্যানোরামিক বা প্যানশট (panoramic বা pan shot)-এর ব্যবহার। Tracking shot-এর প্রথম ব্যবহার সম্পর্কে দুজনের নাম পাওয়া যায়। কেউ বলেন, মেলিয়েস তাঁর [‘L’Homme à la tête en caoutchouc’ (The Man with the Rubber Head)] ছবিতে আবার কেউ বলেন, জেমস এ. উইলিয়ামসন (১৮৫৫-১৯৩৩) তাঁর ‘The Big Swallow’ ছবিতে ব্যবহার করেন।

এডওয়ার্ড কুহু-র স্ত্রী কিনেটোস্কোপ-এর ছবি ‘Annabelle Serpentine Dance’-কে হাতে রং করেন, যা ছিল চলচ্চিত্রকে রঙিন করার প্রথম প্রচেষ্টা। ছবির পরিভাষায় যাকে বলা হয় dupe বা contra type print, অর্থাৎ ল্যাবরেটরিতে ফিল্ম নকল করার পদ্ধতি আবিষ্কৃত হওয়ায় ছবির অনেকগুলো প্রতিলিপি বিভিন্ন জায়গায় একসঙ্গে দেখানোর সুবিধা হয়। তবে বিদেশি ছবিগুলি রাতারাতি নকল হয়ে দেশময় ছড়িয়ে পড়ায় ব্যবসায় বেশ ক্ষতি হয়। ১৮৯৬-এর শেষ দিকটা এ সমস্ত ঘটনায় চূড়ান্ত উত্তেজনাপূর্ণ ছিল।

এডওয়ার্ড কুহু-র স্ত্রী কিনেটোস্কোপ-এর ছবি ‘Annabelle Serpentine Dance’-কে হাতে রং করেন।

Kuhu and Webster Company যা পরে International Company হয়, সেখানে বিশ্বের প্রথম বিজ্ঞাপনচিত্র তৈরির কাজে পোর্টার যোগ দেন ও তৈরি হয়, Haig & Haig highland whiskey ও Maillard’s chocolate-এর বিজ্ঞাপন। যদিও অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, প্রথম যাঁর মাথা থেকে এই বিজ্ঞাপনচিত্র তৈরির বিষয়টা বেরোয়, তাঁর নাম আজ আর কারও স্মরণে নেই— ইতিহাস বিস্মৃত।

চলচ্চিত্রের পর্দায় জন্মের দু’বছরের মধ্যেই ঘটে এক ভয়ংকর দুর্ঘটনা। ১৮৯৭-এর ৪ মে, বিকেল ৪টে নাগাদ সাঁজেলিঁজে (Champs-Élysées)-এর কাছে Société de Charité Maternelle-এর বাৎসরিক মেলায় আগুন লেগে যায় ও ঘণ্টাব্যাপী এই অগ্নিকাণ্ডে রঙিন মেলা রূপান্তরিত হয় বীভৎস শ্মশানে। মৃতের সংখ্যা একশো আশি। এটিই Charity Bazaar Fire নামে কুখ্যাত। তদন্তের ফলে জানা যায়, ল্যাম্পের আলোটা কমে যাওয়ায় M. Bellac নামে সিনেমাটোগ্রাফ যন্ত্রের এক কর্মী দেশলাই জ্বেলে ভাল করে দেখতে গেলে ল্যাম্পের ইথারে লেগে যায় আগুন যা মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ে। ২৪ মে-তে আরও একটা দুঘর্টনার খবর পাওয়া যায়। তবে এতে কেউ মারা যাননি। যদিও অসাবধানতাই এর মূলে তবু চলচ্চিত্র প্রদর্শনের ওপর এর প্রভাব পড়ায় জনপ্রিয়তা হ্রাস পায় অনেকাংশে।

সিসিল হেপওয়ার্থ (১৮৭৪-১৯৫৩) তৈরি করেন Film developing machine, এতে হাতে করে ফিল্ম ধোয়ার পরিশ্রম ও সময় বেঁচে গেল।

পর্দায় চলচ্চিত্রের দু’বছর বয়সেই আর একটা ঘটনা ঘটল। Passion Play-র আবির্ভাব এবং Salmi morse-র লেখা নাটকের স্ক্রিপ্টই হল পৃথিবীর প্রথম চিত্রনাট্য। লেক্সিনটন এভিনিউয়ের গ্র্যান্ড সেন্ট্রাল প্যালেস-এর ছাদে তৈরি হল প্যাশন প্লে-র জন্য স্টুডিও। প্রখ্যাত নাট্য পরিচালক এইচ. সি. ভিনসেন্ট ডিসেম্বরে Passion Play-র কাজ শুরু করেন ও ১৮৯৭-এর প্রথম দিকেই কাজ শেষ হয়ে যায়। ৩০ জানুয়ারি Eden Musse হলে বিকেল ৩টে ও রাত ৯টায় ছবি দেখানো হয়। তখনও চলচ্চিত্রে subtitle-এর প্রচলন হয়নি। মুখে বলে দেওয়া হত গল্পের ধারাবাহিকতা। ফ্র্যাঙ্ক ওকস রোজ ছিলেন ২১০০ ফুট প্যাশন প্লে-র ধারাভাষ্যকার। নির্মাতা, দর্শক সকলেই খুশি। প্রবল জনপ্রিয়তা অর্জন করে এই প্যাশন প্লে।

১৮৯৭ সালে স্পেনের সঙ্গে আমেরিকার যুদ্ধ শুরু হয়। চলচ্চিত্রেও এর প্রভাব পড়ে। ব্ল্যাকটন ও স্মিথ তৈরি করলেন ‘Tearing Down the Spanish Flag’ নামে ছবি, যা সেই সময় জনপ্রিয় হয়েছিল। সেই থেকে এই ধরনের দেশাত্মবোধক ছবি তৈরি শুরু হয়ে গেল। কিন্তু উপযুক্ত ক্যামেরা, লেন্স, ক্যামেরামানের কার্যকরী সহায়তা না পাওয়ায় প্রকৃত যুদ্ধের ছবি তোলা গেল না।

আউকেগানের স্টুডিওতে বসে এডওয়ার্ড এইচ. আমেট এক চমকপ্রদ কাজ করে ফেললেন, তৈরি করলেন ‘Battle of Santiago Bay’-র মত ছবি, স্টুডিওর ভিতরে জলের চৌবাচ্চায়। কাগজে ছাপা যুদ্ধজাহাজের ছবিকে ভিত্তি করে ও লেন্সের সমকোণের সঙ্গে সমতা রেখে যতদূর সম্ভব নিখুঁতভাবে তৈরি হল যুদ্ধজাহাজের মডেল। উইলিয়াম এইচ. হাওয়ার্ড এইসব যুদ্ধজাহাজকে বৈদ্যুতিক শক্তিমাধ্যমে চালনা করার কাজে সাহায্য করলেন অ্যামেটকে।

অ্যাডমিরাল কারভেরার নৌবাহিনীকে পরাস্ত করে চৌবাচ্চায় ডুবিয়ে দিয়ে অ্যামেট এমন অভূতপূর্ব ছবি তৈরি করলেন, যা লেক ব্লাফ-এ অবস্থিত মার্কিন নৌ-প্রশিক্ষণ স্টেশনের হর্তাকর্তাদেরও চমকে দিয়েছিল। স্পেনের মিলিটারি আর্কাইভে সংরক্ষিত হয়েছিল এই ছবি। পরবর্তী সময়ে অ্যামেট ছবির জগৎ থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে নিতে বাধ্য হন।

‘A Trip to the Moon’ (১৯০২), ‘Cinderella’ (১৮৯৯), ‘The Kingdom of the Fairies’ (১৯০৩)— এই সকল ছবিতে ধীরে ধীরে চলচ্চিত্রের নিজস্ব ভাষা ইত্যাদির চল শুরু হল। এর পিছনে মেলিয়েসের গঠনধর্মী চিন্তা ও কল্পনার বিস্তারকে অস্বীকার করার উপায় নেই।

পোর্টার এডিসনের কোম্পানিতে যোগদান করেই Shamrock I-এর বিখ্যাত নৌকাদৌড় প্রতিযোগিতার ছবি তোলেন। এই ছবি তোলার নেপথ্যে এক মজার কাহিনি আছে। রেফারির নৌকাতে আগে তৈকেই অনেক প্রেস-ফটোগ্রাফার উঠে বসেছিলেন। তাঁরা কেউই চাইছিলেন না পোর্টার তাঁর বড় মুভি ক্যামেরা নিয়ে উঠুন। তাঁরা পোর্টারের ছবি তোলায় নানা রকম বাধাবিঘ্নের সৃষ্টি করেন। বাধ্য হয়ে পোর্টার চলে যান নৌকার একেবারে শেষপ্রান্তে, যাতে কেউ কোনও রকম বিঘ্ন ঘটাতে না পারে। নৌকাদৌড় শুরু আর পোর্টারের ছবি তোলাও চলল নির্বিঘ্নে। কিন্তু অনেক পরে বোঝা গেল যে সূর্যের মুখোমুখি দিক থেকে ছবি তোলা হচ্ছে। তবে তখন আর কিছু করার নেই। তাই পোর্টারও ছবি তুলে গেলেন আর প্রচণ্ড মনখারাপ নিয়ে ল্যাবরেটরিতে ফিরে এসে সেই ছবি পরিস্ফুটনও করলেন এই আশা নিয়ে, যদি কিছু পাওয়া যায়।

ছবি পরিস্ফুটনের পর সবাই দেখে চমকে গেলেন। নৌকাগুলোর পিছন দিক থেকে আলো থাকায় সেগুলো ছায়ামূর্তি আর স্বচ্ছ পালের ভিতর দিক থেকে বেরিয়ে আসা পড়ন্ত বিকেলের আলো, যার ফলশ্রুতি কালো জলের ওপর রোদের প্রতিফলনে হাজারো হীরের দ্যুতি নিয়ে তৈরি হয়েছে এক অনিন্দ্যসুন্দর ছবি যা চলচ্চিত্রের ইতিহাসে এক নতুন অভিজ্ঞতা।

>>> ক্রমশ >>>

কভার: চলচ্চিত্রকে রঙিন করার প্রথম প্রচেষ্টা।/ চিত্র : গুগল

ছবিবৃত্তান্ত প্রথম কিস্তি

ছবিবৃত্তান্ত দ্বিতীয় কিস্তি

ছবিবৃত্তান্ত তৃতীয় কিস্তি

ছবিবৃত্তান্ত চতুর্থ কিস্তি

ছবিবৃত্তান্ত ষষ্ঠ কিস্তি

5 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »
মধুপর্ণা বসু

মধুপর্ণা বসুর দুটি কবিতা

ভয় পেলে ভয়ংকর সত্যি ধারালো ছুরির মতো/ খুব সন্তর্পণে এফোঁড়ওফোঁড় তবুও অদৃশ্য ক্ষত,/ ছিঁড়ে ফেলে মধ্যদিনের ভাতকাপড়ে এলাহি ঘুম/ দিন মাস বছরের বেহিসেবি অতিক্রান্ত নিঃঝুম।/ গণনা থাক, শুধু বয়ে চলে যাওয়া স্রোতের মুখে/ কোনদিন এর উত্তর প্রকাশ্যে গাঁথা হবে জনসম্মুখে।/ ততক্ষণে তারাদের সাথে বুড়ি চাঁদ ডুবেছে এখন,/ খুঁজে নিতে পারঙ্গম দুদণ্ড লজ্জাহীন সহবাস মন।

Read More »
নন্দদুলাল চট্টোপাধ্যায়

ছোটগল্প: জমির বিষ

বিষয় মানেই বিষ। তালুকেরও হুল ছিল। বছরে দু’বার খাজনা দিতে হতো। আশ্বিন মাসে দুশ’ টাকা আর চত্তির মাসে শেষ কিস্তি আরো দুশ’ টাকা। এই চারশ’ টাকা খাজনার চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত। সে বছর বাবার ভীষণ অসুখ। বাতে একদম পঙ্গু, শয্যাশায়ী। অসুস্থ হয়ে জমিদারের ছুটি মিলল। কিন্তু খাজনা জমা দেবার ছুটি ছিল না। চত্তির মাসের শেষ তারিখে টাকা জমা না পড়লেই সম্পত্তি নিলাম হয়ে যেত।

Read More »