Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

কুলিকে, শামুকখোলের কলোনিতে

শ্রাবণের শুরুতেই এবছর বর্ষা এসেছে গৌড়বঙ্গে। গৌড়বঙ্গ বলতে মালদা, উত্তর এবং দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাকেই বোঝায়। কিন্তু এবছর বর্ষা শুরু হওয়ার আগেই উত্তর দিনাজপুরের জেলা সদর রায়গঞ্জের কুলিক পক্ষীনিবাস ভরে উঠেছে পরিযায়ী পাখিতে। রায়গঞ্জের আকাশ জুড়ে এখন পরিযায়ী পাখিদের উড়ে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে।

প্রতি বছর রায়গঞ্জের কুলিক নদীর ধারে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশের বনাঞ্চল ভরে ওঠে এই পরিযায়ী পাখির কলকলানিতে। সবুজ বনাঞ্চল বছরের কিছু সময়ের জন্য হয়ে যায় শ্বেতশুভ্র। কারণ এখানকার সব পরিযায়ী পাখির গায়ের রং সাদা। মূলত জুন মাসের শেষ থেকে নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত এই বনাঞ্চলে পরিযায়ী পাখিরা ভিড় করে থাকে।

সবুজ বনাঞ্চল বছরের কিছু সময়ের জন্য হয়ে যায় শ্বেতশুভ্র।

বন দফরের বক্তব্য অনুযায়ী, এই বনাঞ্চলে করমোর‌্যান্ট, ইগ্রেট, নাইট হেরন, এশিয়ান ওপেনবিল স্টর্ক বা শামুকখোল— এই চার প্রজাতির পাখি দেখা যায়। উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় শামুকখোলের উপস্থিতি এই কুলিক পক্ষীনিবাস বা কুলিক পাখিরালয়কে এশিয়ার বৃহত্তম শামুকখোলের কলোনি বানিয়েছে। এরাই পরিযায়ী পাখি হিসাবে পরিচিত। প্রতি বছর এই নির্দিষ্ট সময়ে বনাঞ্চল ছেয়ে যায় পরিযায়ী পাখিদের কলতানে। কোথা থেকে এই পরিযায়ী পাখিরা কুলিক নদী সংলগ্ন এই বনাঞ্চলে আসে, সেটা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। কেউ বলেন, পাখিগুলি আসে সুদূর তিব্বত থেকে। আবার কারও দাবি, পাখিরা আসে সাইবেরিয়া থেকে। এই পরিযায়ী পাখিদের সঠিক বাসস্থান নিয়ে গবেষণাও শুরু হয়েছে। কিন্ত এখনও পর্যন্ত কোনও গবেষকই বলতে পারেননি এই পরিযায়ী পাখিদের আদি বাসস্থান।

কৃত্রিমভাবে তৈরি ক্যানেলে পাখিদের প্রয়োজনীয় খাবারের ব্যবস্থা হয়।

তবে স্থানীয়ভাবে সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, এখানে এই পাখিরা আসে মূলত বংশ বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে। কুলিকে পৌঁছনোর এক-দুদিনের মধ্যেই তারা সঙ্গী নির্বাচন করে ফেলে এবং মিলনের প্রস্তুতি নেয়। এরপর শুরু হয় বাসা তৈরির কাজ। বাসাটিকে একটি নির্দিষ্ট আকার দিতে ১২-১৫ দিন সময় নেয় তারা। বাসা মূলত তৈরি হয় গাছের ডালপালা, নরম সবুজ পাতা এবং ঘাস দিয়ে। স্ত্রী-পুরুষ উভয়ে মিলে বাসা বানায়। ডিম পাড়ার পরে উভয়েই পালা করে ডিমে তা দেয়। এইভাবে বনাঞ্চলের গাছে বাসা তৈরি করে সেখানে ডিম পেড়ে শাবকের জন্ম দিয়ে, সেই শাবককে আকাশে উড়তে শিখিয়ে তবেই আবার ফিরে যায় নিজেদের দেশে।

.

বিগত কয়েক বছর দুর্গা পুজোর দিনগুলির আগে বা পরে রায়গঞ্জে বৃষ্টি হয়েছিল। ঝড়-জলে বনাঞ্চলের গাছগুলি থেকে পরিযায়ী পাখিদের তৈরি করা বাসাগুলো মাটিতে আছড়ে পড়েছিল। সেই সময় পাখিদের বাসায় ছিল সদ্যেজাত শাবকরা। ঝড়-জলে সেই শাবকদের অধিকাংশ মাটিতে পড়ে মারা গিয়েছিল। সেই সব বছরগুলিতে এই পাখিরা নিজেরাই তাদের ফিরে যাওয়ার সময় পিছিয়ে দিয়েছিল। তারা আবার নতুন করে বাসা বানিয়ে তাতে ফের ডিম পেড়ে, সেই ডিম ফুটিয়ে শাবকের জন্ম দিয়ে, তাদেরকে আকাশে উড়তে শিখিয়ে তবেই ফিরে গিয়েছিল। প্রবল বর্ষণ কিংবা প্রখর সূর্যের তাপের থেকে রক্ষা করতে পরিযায়ী পাখিরা নিজেদের ডানাগুলিকে ছাতার মত করে মেলে ধরে শাবকদের রক্ষা করে। এই দৃশ্য হামেশাই দেখা যায়।

.

প্রতি বছরই এখানে আসা পরিযায়ী পাখিদের সংখ্যা প্রায় একলাখের কাছাকাছি। উত্তরোত্তর পাখিদের সংখ্যা বাড়ছে। সেটা অবশ্য পাখি গণনাতেই জানা যাচ্ছে। আমরা আদম সুমারি, গণ্ডার সুমারি বা বাঘ সুমারির কথা শুনেছি। কিন্তু কুলিক নদীর ধারের এই বনাঞ্চলের পরিযায়ী পাখিদের ‘পক্ষী সুমারি’ প্রতি বছর করেন বনকর্মীরা। বনকর্মীদের এই কাজে গত কয়েক বছর ধরে সাহায্য করছে রায়গঞ্জের কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এই পক্ষী সুমারির পদ্ধতিটি যথেষ্ট মজাদায়ক।

.

বন দফতরের কথা অনুযায়ী, প্রথমে প্রতিটি গাছে পাখির বাসা গোনা হয়। তারপর সেই বাসায় একজোড়া দম্পতি পাখি এবং তাদের দুটো শাবক ধরে নিয়ে হিসাব করা হয়। সেই হিসাব প্রতি বছরই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এই পরিযায়ী পাখিদের জন্য বনাঞ্চলের ভিতরে কৃত্রিমভাবে তৈরি ক্যানেলে প্রয়োজনীয় খাবারের ব্যবস্থা করে রাখেন বন দফতরের কর্মীরা। নানা ধরনের ছোট মাছ, বিভিন্ন ধরনের পোকামাকড় বা সরীসৃপ ছেড়ে রাখেন জঙ্গলের ভিতরে। তারপরেও খাবারের খোঁজে পরিযায়ী পাখিরা উড়ে যায় শহরের আশেপাশের গ্রামাঞ্চলে। শাবক যখন ছোট থাকে, তখন মা পাখি ঠোঁটে করে খাবার নিয়ে এসে শাবকদের মুখে দিয়ে দেয়। পরে শাবক একটু বড় হলে তারা নিজেরাই এই বনাঞ্চলে ঘুরে ঘুরে খাবার সংগ্রহ করে। যখন শাবক উড়তে শেখে, সেসময় অভিভাবক পাখি শাবকদের নিয়ে আকাশে উড়তে শিখিয়ে দীর্ঘ পথচলার প্রশিক্ষণ দিয়ে এই বনাঞ্চল ছেড়ে উড়ে চলে যায়। ইংরেজি সালের সেই বছরের ক্যালেন্ডারের পাতায় তখন নভেম্বরের শেষ সপ্তাহ।

চিত্র: লেখক
5 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

আবদুল্লাহ আল আমিন

মাহমুদ দারবিশের কবিতায় ফিলিস্তিনি মুক্তিসংগ্রাম

যুবা-তরুণ-বৃদ্ধ, বাঙালি, এশিয়ান, আফ্রিকান যারাই তাঁর কবিতা পড়েছেন, তারাই মুগ্ধ হয়েছে। তাঁর কবিতা কেবল ফিলিস্তিনি তথা আরব জাহানে জনপ্রিয় নয়, সারা বিশ্বের ভাবুক-রসিকদের তৃপ্ত করেছে তাঁর কবিতা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বাধিক পঠিত নন্দিত কবিদের একজন।

Read More »
সুজিত বসু

সুজিত বসুর কবিতা: কিছু কিছু পাপ

শৈবাল কে বলেছ তাকে, এ যে বিষম পাথরে/ সবুজ জমা, গুল্মলতা পায়ে জড়ায়, নাগিনী/ হিসিয়ে ফণা বিষের কণা উজাড় করো আদরে/ তরল হিম, নেশার ঝিম কাটে না তাতে, জাগিনি

Read More »
সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »