Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

বাইসাইকেল ডে-র গল্প এবং একটি আকস্মিক আবিষ্কার

অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, লেখার শিরোনাম শুরুতেই পাঠককে বিভ্রান্ত করে। আগাম একটি ধারণা নিয়ে পড়তে শুরু করে পরে বুঝতে পারেন যে, তিনি যা ভেবে পড়তে শুরু করেছিলেন, আসলে সেটি তা নয়। বস্তুত সেক্ষেত্রে পাঠকের আগাম ধারণাকে দোষ দেওয়া যায় না, শিরোনাম নির্বাচন যথাযথ না-হওয়ার জন্যেই ওই বিভ্রান্তি। এই লেখার শিরোনামে ‘বাইসাইকেল’ শব্দটি যথোপযুক্ত হওয়া সত্ত্বেও পাঠক নিশ্চিত বিভ্রান্তিতে পড়বেন। সেকথা আন্দাজ করেই প্রথমেই এই লেখার উপজীব্য নিয়ে একটু বলে নিতে চাই। আসলে ‘বাইসাইকেল ডে’ পড়ে পাঠক প্রথমেই ভেবে নেবেন, খুব চেনা দু-চাকার সেই পরিবেশবান্ধব যানের কথা। না, তা একেবারেই নয়, এ কাহিনি ‘বাইসাইকেল’ উদ্ভাবন নিয়েও নয়।

তাহলে এই ‘বাইসাইকেল ডে’ ঠিক কী?

এর পেছনে আছে সম্পূর্ণ অন্যরকমের অভিনব একটি আবিষ্কারের কাহিনি। যে আবিষ্কারের জন্ম হয়েছিল ৮০ বছর আগে, আকস্মিকভাবে। আবিষ্কৃত সেই নতুন রাসায়নিক পদার্থটির নাম এল. এস. ডি. (LSD)। নামটি অনেকেরই শোনা শোনা লাগবে। নিষিদ্ধ নেশাবস্তু হিসেবেই তার পরিচিতি।  LSD-র পুরো কথাটি হল ‘লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইইথ্যালামাইড’ (Lysergic Acid Diethylamide)। এই অভিনব রাসায়নিক পদার্থটি প্রথম সংশ্লেষ করেন অ্যালবার্ট হফম্যান নামে একজন রসায়ন বিজ্ঞানী। স্যুইস রসায়নবিদ অ্যালবার্ট হফম্যান (১৯০৬-২০০৮) সাইকোঅ্যাক্টিভ পদার্থ LSD-র আবিষ্কারক হিসেবে বিশ্ববাসীর কাছে সুপরিচিত। সাইকোঅ্যাক্টিভ পদার্থের বৈশিষ্ট্য ও ধর্ম সম্পর্কে তিনি বিশেষভাবে আলোকপাত করেন, যা তাঁর অন্যতম যুগান্তকারী আবিষ্কার।

অ্যালবার্ট হফম্যান (১১ জানুয়ারি ১৯০৬-২৯ এপ্রিল ২০০৮)।

শিরোনামের ‘বাইসাইকেল ডে’ প্রসঙ্গে আসার আগে LSD সম্পর্কে দু-চার কথা বলে নেওয়া দরকার। হফম্যানের এই আবিষ্কারের পরেই মানুষের চেতনায় সাইকেডেলিক পদার্থের প্রভাব সম্পর্কে ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয় জনমানসে। প্রকৃতিগতভাবে সৃষ্ট একাধিক সাইকেডেলিক পদার্থ সম্পর্কে জ্ঞানের পরিধি সম্প্রসারিত হয়েছে হফম্যানের গবেষণালব্ধ ফলাফল থেকে। LSD নামের এই শক্তিশালী সাইকেডেলিক পদার্থ পাওয়া যায় একধরনের ছত্রাকের (Ergot fungus) মধ্যে। তাঁর গবেষণা থেকে জানা গেছে, মানুষের চেতনা, উপলব্ধি, সাময়িক মানসিক অবস্থা এবং চিন্তাপ্রক্রিয়াকে গভীরভাবে প্রভাবিত করতে পারে LSD। সেই কারণে LSD-কে হ্যালুসিনোজেন (hallucinogen) গোত্রের বস্তু হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করা হয়েছে। কোনও পদার্থের এই ধরনের ধর্ম থাকলে তাকে, ‘সাইকেডেলিক’ বা ‘সাইকোঅ্যাক্টিভ’ ধর্মীয় পদার্থ বলে। এর প্রভাব ও প্রতিক্রিয়া এক-এক জনের ক্ষেত্রে এক-একরকম এবং প্রয়োগের মাত্রার ওপর নির্ভরশীল।

শস্যাদি সংক্রমণকারী এর্গো‌ট (Ergot) ছত্রাকের মধ্যে এর্গো‌টামিন (ergotamine) নামের এক ধরনের অ্যালক্যালয়েড (Alkaloid) পাওয়া যায়। এর্গো‌টামিন-কে হাইড্রোলিসিস (জলের সঙ্গে রাসায়নিক বিক্রিয়া) করে লাইসারজিক অ্যাসিড (lysergic acid) পাওয়া যায়। তার পরের ধাপে, এই অ্যাসিডকে সংশ্লেষ করলে LSD তৈরি হয়। যদিও একাধিক ‘সাইকেডেলিক’ বস্তুর সন্ধান পাওয়া গেছে পরবর্তী সময়ে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য আর-একটি হল সিলোসাইবিন (psilocybin), যা ম্যাজিক মাশরুম থেকে তৈরি হয়। এছাড়াও বিভিন্ন প্ল্যান্ট-অ্যালক্যালয়েডের মধ্যেও সাইকেডেলিক ধর্ম দেখতে পাওয়া যায়। হফম্যানের আবিষ্কার সাইকোলজি, নিউরোসায়েন্স, এবং ফার্মাকোলজি গবেষণার ক্ষেত্রে বিশেষভাবে কার্যকরী। তাঁর গবেষণা মগজ সম্পর্কে আমাদের জ্ঞানের পরিধিকে আরও বিস্তৃত করেছে। মানসিক অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসায় সাইকেডেলিক ড্রাগ ব্যবহারের সুফল পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও মনে করেন বিজ্ঞানীরা। যদিও পৃথিবীর অধিকাংশ দেশে LSD নামক হ্যাল্যুসিনোজেনিক ড্রাগটির ব্যবহার আইনত নিষিদ্ধ।

‘বাইসাইকেল ডে’-র ছবির পোস্টার।

১৯৩৮ সালের কথা। সুইৎজারল্যান্ডে ‘স্যানডোজ ল্যাবরেটরি’-তে সেসময় কাজ করেন হফম্যান। এর্গো‌ট-এর মধ্যে সম্ভাব্য ওষধিগুণ রয়েছে কি না, তা নিয়ে সেসময় চলছিল তাঁর পরীক্ষানিরীক্ষা। হফম্যানের প্রধান লক্ষ্য ছিল, এমন একটি উদ্দীপক রাসায়নিক বস্তু তৈরি করা, যা দিয়ে শ্বাসপ্রশ্বাস এবং সংবহন সংক্রান্ত সমস্যার নিরাময় সম্ভব। ওই সময়েই তিনি LSD সিন্থেসিস করতে সমর্থ হন। প্রথমদিকে তিনি প্রাণীদের ওপর পরীক্ষানিরীক্ষার সময় LSD-র প্রতিক্রিয়া ও প্রভাব বিষয়ে উল্লেখযোগ্য কিছু দেখতে পাননি। তবু সেই LSD নিয়েই পাঁচ বছর পরে আবার নতুন উদ্যমে পরীক্ষানিরীক্ষা শুরু করেন। তার জন্য একটি নতুন LSD ব্যাচ তৈরিও করলেন। আর সেখান থেকেই ঘটনাক্রমে ঐতিহাসিক ‘বাইসাইকেল ডে’-র দিকে এগিয়ে গেলেন হফম্যান।

আবিষ্কারের পাঁচ বছর পরের কথা। ব্যাসেল-এ স্যানডোজ ল্যাবরেটরির ফার্মাসিউটিক্যাল ডিপার্টমেন্টে কাজ করছিলেন হফম্যান। হঠাৎই হাতের পাত্র থেকে সামান্য একটু LSD ছিটকে পড়ে এবং কোনওভাবে তা তাঁর ত্বকের সংস্পর্শে আসে। তখনও পর্যন্ত হফম্যানের বিন্দুমাত্র ধারণা ছিল না যে, LSD-র তীব্র সাইকেডেলিক প্রভাব থাকতে পারে। সেদিন কাজ করতে করতে কোনওভাবে খুব সামান্য LSD চামড়ার মধ্য দিয়ে ঢুকে যায়। কিছু সময় পরে তিনি বুঝতে পারেন কেমন অদ্ভুত একধরনের আচ্ছন্নতার অনুভূতি হচ্ছে শরীরে ও মনে। এক অজানা উদ্দীপনার সঞ্চারের অনুভূতি টের পাচ্ছিলেন। বুঝতে পারছিলেন এই মানসিক অস্থিরতা আর অদ্ভুত লাগার অনুভূতি খুব সম্ভবত LSD-র সংস্পর্শে হয়েছে।

এলএসডি-র আণবিক গঠন সংকেত।

বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্যে হফম্যান বস্তুটি এবার সরাসরি নিজের ওপর পরীক্ষা করবেন বলে স্থির করলেন। দিনটি ছিল ১৯ এপ্রিল। বিকেল ৪:২০ মিনিট। ২৫০ মাইক্রোগ্রাম এলএসডি নিজের শরীরে নিলেন। প্রায় সঙ্গে সঙ্গে হফম্যান বুঝতে পারলেন বস্তুটির অদ্ভুত প্রভাব ধীরে ধীরে তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে চলেছে। তিনি বুঝতে পারলেন এই অবস্থায় একা একা বাড়ি ফেরা ঠিক হবে না। তাই তিনি তাঁর সহকারীকে অনুরোধ করলেন, তিনি যেন সঙ্গে যান। সেইসময় যুদ্ধ চলছিল। তাই ব্যাসেলের রাস্তায় যাতায়াত করার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ বহাল ছিল। সুতরাং সেদিন বাইসাইকেল চালিয়ে বাড়ি ফেরা ছাড়া গত্যন্তর ছিল না। সেই সাইকেল-যাত্রায় তাঁর চেতনার ওপর যে অভূতপূর্ব শক্তিশালী প্রভাবের অভিজ্ঞতার সাক্ষী হলেন হফম্যান, যাকে বলা চলে সাইকেডেলিক অভিযাত্রা। LSD-র প্রভাবে হফম্যানের চেতনার ওপর সেই যে অভূতপূর্ব প্রভাবের অভিজ্ঞতা— সেখান থেকেই পৃথিবীতে নিয়ে এল এক নতুন যুগ। হফম্যানের স্মরণীয় সেই অভিজ্ঞতার ‘১৯-এ এপ্রিল’ দিনটি চিহ্নিত হয়ে গেল ‘বাইসাইকেল ডে’ হিসেবে। পরবর্তী ১৯৫০ থেকে ১৯৬০ চেতনা গবেষণার ক্ষেত্রে LSD নতুন নতুন দরজা খুলে দিল এবং মানুষের মন ও মনস্তত্ব গবেষণায় নতুন যুগের সূচনা করল। বিভিন্ন ধরনের মানসিক ব্যাধির চিকিৎসা ও উপশমের ক্ষেত্রে সাইকেডেলিক ড্রাগের প্রয়োগ নতুন প্রতিশ্রুতি নিয়ে এল। সেই বাইসাইকেল অভিযাত্রার পর থেকেই অ্যালবার্ট হফম্যানকে ‘সাইকেডেলিক্স’-এর ‘বিজ্ঞানী-গডফাদার’ হিসেবে পরিচিতি দিল।

সেদিনের সেই যাত্রাপথের অভিজ্ঞতা ও মানসিক অবস্থা এবং উপলব্ধিকে হফম্যান পরে বর্ণনা করেছেন— “…মনে হচ্ছিল, আমি যেন শূন্যে ভেসে ভেসে রয়েছি। তারপর কখন যেন আমি একটু একটু করে উপভোগ করতে আরম্ভ করলাম অজস্র অদৃষ্টপূর্ব রং, না-শোনা শব্দ এবং বিভিন্ন আকারের কতরকমের জিনিস, আমার বন্ধ চোখের পেছনে সেসব কিছু ভেসে বেড়াচ্ছিল। ক্যালাইডোস্কোপের মত যেন। চমৎকার সব ছবি তরঙ্গের মত আছড়ে পড়ছিল আমার চারপাশে। পর্যায়ক্রমে বৈচিত্র্যময় কখনও খুলে যাচ্ছিল, কখনও তা বন্ধ হচ্ছিল… বৃত্তীয় আকৃতির, কখনও বা সর্পিল, নানান রঙের ঝর্নার অবিরাম স্রোতধারা দেখতে পাচ্ছিলাম। সেই অবিরাম প্রবাহ কখনও পুনর্বিন্যস্ত হচ্ছিল, কখনও আবার তা একটি অবয়বের সঙ্গে অন্যটি মিশে যাচ্ছিল।” পরবর্তী সময়ে হফম্যান তাঁর স্মৃতিকথা ‘LSD: My Problem Child’ লিখেছিলেন।

LSD: My Problem Child

ছ-মাইল রাস্তা সাইকেলের প্যাডেলে পা রেখে সেই পরাবাস্তব যাত্রা-শেষে হফম্যান বাড়ি ফিরেছিলেন আর সেই অভিযাত্রায় অসাধারণ সব ছবির সাক্ষী হয়েছিলেন। সেসব দৃশ্যের কতটুকুই বা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব? ওই অবস্থায় কোনও দুর্ভাগ্যজনক প্রতিক্রিয়া ছাড়া তিনি কী করে যে নিরাপদে বাড়ি ফিরে আসতে পেরেছিলেন, এখন তা ভাবতেই পারা যায় না।

এই ঘটনার পরে গৃহচিকিৎসককে তাঁর অভিজ্ঞতার কথা বিস্তারিত বললেন। ডাক্তারবাবু পরীক্ষা করে নিশ্চিত করলেন যে, এই ঘটনায় হফম্যানের শরীরে বাহ্যিক কোনও পরিবর্তন হয়নি। তিনি আরও নিশ্চিত করেন যে, ওই বস্তুর প্রভাব সম্পূর্ণভাবে মানসিক (সাইকোলজিক্যাল)। হফম্যান পরবর্তী সময়ে বুঝতে পারেন যে, সেদিনের সেই LSD ডোজ ন্যূনতম মাত্রার (২০ মাইক্রোগ্রাম) প্রায় দশ গুণ বেশি ছিল। আর সেই কারণেই তাঁর মধ্যে LSD-র প্রতিক্রিয়া অতখানি দ্রুত ও প্রবল হয়েছিল। যদিও এর ফলে তাঁর শারীরিক যে কোনও ক্ষতি হয়নি, তা তাঁর ১০২ বছরের আয়ুষ্কাল থেকেই বুঝতে পারা যায়।

উল্লেখ্য যে, LSD এবং psilocybin-এর গঠনের সঙ্গে আমাদের ব্রেনে তৈরি হওয়া ‘সেরোটোনিন’ নামের নিউরো-ট্রান্সমিটার-এর অনেক মিল রয়েছে। আমরা আজ জানি, এই Serotonin বিভিন্ন স্নায়বিক প্রক্রিয়া; যথা মুড এবং উপলব্ধির নিয়ন্ত্রক। অনেকটা একই রকমভাবে LSD-ও সম্ভবত আমাদের মগজে কাজ করে। হফম্যান নিজেই জানিয়েছিলেন যে, তাঁর আবিষ্কৃত এলএসডি ‘মেডিসিন ফর দ্য সোল’। তবে সতর্কও করেছিলেন, এটা ‘ভুল হাতে পড়লে মারাত্মক’-ও হতে পারে।

রাষ্ট্রপুঞ্জ ঘোষিত জুনের ৩ তারিখের ‘ওয়ার্ল্ড বাইসাইকেল ডে’-র সঙ্গে যে এই লেখার ‘বাইসাইকেল ডে’-র যে কোনও মিল নেই— তা আর পাঠককে নতুন করে না বললেও চলবে।

চিত্র: গুগল
5 3 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »
মধুপর্ণা বসু

মধুপর্ণা বসুর দুটি কবিতা

ভয় পেলে ভয়ংকর সত্যি ধারালো ছুরির মতো/ খুব সন্তর্পণে এফোঁড়ওফোঁড় তবুও অদৃশ্য ক্ষত,/ ছিঁড়ে ফেলে মধ্যদিনের ভাতকাপড়ে এলাহি ঘুম/ দিন মাস বছরের বেহিসেবি অতিক্রান্ত নিঃঝুম।/ গণনা থাক, শুধু বয়ে চলে যাওয়া স্রোতের মুখে/ কোনদিন এর উত্তর প্রকাশ্যে গাঁথা হবে জনসম্মুখে।/ ততক্ষণে তারাদের সাথে বুড়ি চাঁদ ডুবেছে এখন,/ খুঁজে নিতে পারঙ্গম দুদণ্ড লজ্জাহীন সহবাস মন।

Read More »
নন্দদুলাল চট্টোপাধ্যায়

ছোটগল্প: জমির বিষ

বিষয় মানেই বিষ। তালুকেরও হুল ছিল। বছরে দু’বার খাজনা দিতে হতো। আশ্বিন মাসে দুশ’ টাকা আর চত্তির মাসে শেষ কিস্তি আরো দুশ’ টাকা। এই চারশ’ টাকা খাজনার চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত। সে বছর বাবার ভীষণ অসুখ। বাতে একদম পঙ্গু, শয্যাশায়ী। অসুস্থ হয়ে জমিদারের ছুটি মিলল। কিন্তু খাজনা জমা দেবার ছুটি ছিল না। চত্তির মাসের শেষ তারিখে টাকা জমা না পড়লেই সম্পত্তি নিলাম হয়ে যেত।

Read More »