Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

কঠোর বিকল্পের পরিশ্রম নেই

‘কঠোর বিকল্পের পরিশ্রম নেই’। Umbrella বিতর্ক দেখে শঙ্খ ঘোষের ‘বিকল্প’ কবিতার এই লাইনটি মনে পড়ল। একদল মেয়ে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় ইংরেজিতে ফেল করেছে। পাশের দাবিতে তারা রাস্তায় ধর্নায় বসেছে, ফেল করার মত পরীক্ষা তারা নাকি দেয়নি। একজন সাংবাদিক তাদের একজনকে umbrella বানান জিগেস করেছিল। মেয়েটি ভুল বলেছে, a দিয়ে বানান শুরু করেছে। সেই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। হাসাহাসি হয়েছে। একজন ছাত্রী যে কিনা দাবি করছে সে ইতিহাস রাষ্ট্রবিজ্ঞানে লেটার পেয়েছে তার অন্তত Umbrella বানান a দিয়ে শুরু নয় u দিয়ে শুরু এটা জানা উচিত ছিল। পুরো বানান ভুল হতেই পারে কিন্তু ওই বয়েসের একজন উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর u দিয়ে Umbrella শুরু হয় এটা জানা উচিত। Umbrella তো চেনা জিনিস, শব্দও বহুল প্রচারিত। জানা উচিত ছিল। কিন্তু জানে না কেন?

একদল সাবঅলটার্নপ্রেমী জনদরদী মেয়েটির পক্ষে দাঁড়িয়েছেন। তাঁরা ওই ভুল বানানের জন্যে দায়ী করে লকডাউনে পড়াশুনো বন্ধ, ইস্কুলে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের ভূমিকা, শিক্ষাব্যবস্থা— সবকিছুর গুষ্টি উদ্ধার করে তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলছেন। এই ভুল বানানের সূত্রে ভদ্রবিত্ত এবং বুর্জোয়া শিক্ষাব্যবস্থাকে একহাত তো নেওয়া গেল। অবোধের গোবধে আনন্দ।

শিক্ষা কমিশন কোনও ওষুধের কোম্পানি নয় যে অঙ্ক ইংরেজি শেখার বড়ি তৈরি করবে। শিক্ষক-শিক্ষিকরাও তো নার্স নন যে, সেই বড়ি ছাত্রছাত্রীদের খাইয়ে দেবেন। শিক্ষক-শিক্ষিকারা কোনও বিষয় বুঝিয়ে দিতে পারেন, কী করতে হবে সেটা বলে দিতে পারেন। কিন্তু ছাত্রছাত্রীদের পরিশ্রম করেই শিখতে হবে। কোনও বিকল্প নেই। না খাটলে শিখতে পারবে না। নামতা বা বানানের মেড ইজি হয় না। খেটেই সেসব শিখতে হয়, মনে রাখার মত কষ্ট করতেই হবে। মেয়েটি ইংরেজিতে ফাঁকি মেরেছে তাই Umbrella-র মত সাধারণ বানানও u না a দিয়ে শুরু সেটা বলেছে। ওই ইস্কুলের যে ছাত্রী বা ছাত্রীরা ইংরেজিতে ভাল ফল করেছে তারাও লকডাউনে ইস্কুলে পড়তে যায়নি, যেটুকু ক্লাস করেছে ওই একই শিক্ষক-শিক্ষিকার কাছে পড়েছে। হয়তো একই কোচিংয়েও পড়েছে। তফাত গড়েছে পরিশ্রম। বিষয়টা এমন নয় যে ভিডিওটি কোনও ক্লাসঘরে গোপনে তোলা। তবে নিশ্চয়ই আপত্তি থাকবে। রাজপথে ১৭-১৮ বছরের মেয়েরা ইংরেজিতে ফেলকে পাশ করাতে দল বেঁধে অবস্থান অবস্থান করছে। অত্যন্ত স্মার্ট ভঙ্গিতে বুমের সামনে বক্তব্য রাখছে। আর সাংবাদিক বানান জিগেস করতেই শিক্ষাব্যবস্থার দোষ হয়ে গেল।

নামধাম গোপন রেখে ওই মেয়েদের নিয়ে একটি সমীক্ষা করে দেখা যাক না, ওরা শুধু উচ্চমাধ্যমিকের ইংরেজি টিউশনের জন্যে কত টাকা খরচ করেছে? দেখা হোক ওরা সরকারের দেওয়া টাকায় ট্যাব বা স্মার্টফোন কিনেছে কি না? একটি তথ্য জেনে রাখা ভাল, প্রতিটি বোর্ডের বেশিরভাগ সাবজেক্টের চ্যাপ্টার অনুযায়ী ভিডিও ইউটিউবে বিনা পয়সায় দেখতে পাওয়া যায়। এইগুলো খুবই কাজের। ইস্কুল যেতে হবে না, কোচিং যেতে হবে না— শুধু এইগুলো নিয়মিত দেখে খানিক পরিশ্রম করলেই যে বোর্ড পরীক্ষায় ৮৫ শতাংশ পাস করে সেই পরীক্ষায় পাস করে যাওয়া যায়।

যথেষ্ট বয়েস হয়েছে, পড়েনি একদম, পুরো ফাঁকি মেরেছে তাই ফেল করেছে। না পড়ে অন্য কাজে নিজের মনকে ব্যস্ত রেখেছে। বিক্ষোভ কেন? গতবছর সবাই পাস করেছে করোনার জন্যে, এবার কেন নয়— তাই। শিক্ষা নিয়ে, ড্রপ আউট নিয়ে অনেক কথা হয়। কিন্তু বখে গিয়েই যে অনেকে ফেল করে বা পড়াশুনো ছাড়ে— সে কথা তেমন আলোচিত হয় না। আর তা ছাড়া সারা বছর এত উত্সবের ঘনঘটা থাকলে পড়বেটাই বা কখন?

এটা ঘটনা যে শিক্ষা ক্রমশ অর্থনির্ভর হচ্ছে। কিন্তু এ বছরও যারা আইআইটি জয়েন্ট পাবে বা চোখ ধাঁধানো রেজাল্ট করবে, তারা দিনরাত্তির এক করে পরিশ্রম করেই করবে। তার বন্ধু আছে কি নেই সেসব নিয়ে মড়াকান্না না কেঁদে তাদের পরিশ্রমকে সম্মান দিতেই হবে। পরিশ্রমের কোনও বিকল্প এখনও লেখাপড়ায় নেই।

চিত্রণ: মুনির হোসেন
5 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
1 Comment
Oldest
Newest Most Voted
Inline Feedbacks
View all comments
Satyajit
2 years ago

Thank you for this upright article

Recent Posts

আবদুল্লাহ আল আমিন

মাহমুদ দারবিশের কবিতায় ফিলিস্তিনি মুক্তিসংগ্রাম

যুবা-তরুণ-বৃদ্ধ, বাঙালি, এশিয়ান, আফ্রিকান যারাই তাঁর কবিতা পড়েছেন, তারাই মুগ্ধ হয়েছে। তাঁর কবিতা কেবল ফিলিস্তিনি তথা আরব জাহানে জনপ্রিয় নয়, সারা বিশ্বের ভাবুক-রসিকদের তৃপ্ত করেছে তাঁর কবিতা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বাধিক পঠিত নন্দিত কবিদের একজন।

Read More »
সুজিত বসু

সুজিত বসুর কবিতা: কিছু কিছু পাপ

শৈবাল কে বলেছ তাকে, এ যে বিষম পাথরে/ সবুজ জমা, গুল্মলতা পায়ে জড়ায়, নাগিনী/ হিসিয়ে ফণা বিষের কণা উজাড় করো আদরে/ তরল হিম, নেশার ঝিম কাটে না তাতে, জাগিনি

Read More »
সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »