Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

ফুল দেই: উত্তরাখণ্ডের ফুলেল উৎসব

উত্তরাখণ্ডের একটি বিখ্যাত উৎসব হল ফুল দেই বা ফুলদেয়ি বা ফুলদেলি। চৈত্রমাসের প্রথমদিন থেকে শুরু হয়ে পুরো চৈত্রমাস জুড়ে এই উৎসব পালিত হয়। এই উৎসবের প্রধান গুরুত্ব কৃষিপ্রধান সমাজে উর্বর ফলনের জন্য উপাস্য দেবতাকে আমন্ত্রণ জানানো ও প্রার্থনা করা, যা ভারতীয় সভ‍্যতার এক চিরায়ত প্রার্থনা। ছোট থেকে বড় সকল মহিলা এই উৎসব অত‍্যন্ত উৎসাহের সঙ্গে পালন করেন। কিশোরী ও যুবতী মেয়েরা প্রথমে বাগান ও জঙ্গল থেকে অনেক ফুল স‌ংগ্রহ করে আনেন। তারপর সেইসব ফুল ও চাল দিয়ে নিজেদের, আত্মীয়স্বজনদের, বন্ধুবান্ধবের বাড়ির প্রধান ফটক বা প্রবেশদ্বারের চৌকাঠের সামনে সুদৃশ্য অলংকরণ নির্মাণ করেন। এরপর মেয়েরা দলবেঁধে প্রতিবেশী ও গ্রামের বেশিরভাগ বাড়িতে যান একটি থালায় কিছু ফুল, চাল ও গুড় নিয়ে। তারা এই গ্রাম পরিক্রমার সময় গান গেয়ে থাকেন। গানের কথা অনেকটা এমন: ‘ফুল দেই, ছম্মা দেই, দৈণী দ্বার, ভরী ভকার, য়ে দেলী স বারংবার নমস্কার, পূজৈঁ দ্বার বারংবার, ফুলে দ্বার…।’ বিনিময় উপহার হিসেবে তারা পান নানারকম মিষ্টি, টাকা, ফল, নারকেল ইত‍্যাদি।

থালায় কিছু ফুল, চাল ও গুড় নিয়ে গ্রাম পরিক্রমা।

ফুলদেই উৎসবের জন্যে যেসব বিশেষ খাবার তৈরি হয় তার মধ্যে প্রধান হল সাআয়া। এটি চালের গুঁড়ো, দ‌ই ও চিনি বা গুড় এবং ঘি দিয়ে তৈরি একরকমের দেশীয় সুস্বাদু পুডিং। এছাড়া ঝাংগোড়ের ক্ষীর, সিংগালস বা সেলরোটি, গুলগুলে, আরসা, ক্ষীরখাজাও তৈরি করেন বাড়ির বউ বা বিবাহিত মেয়েরা। এই আনন্দময় উৎসবে বড়দের সঙ্গে সঙ্গে বাড়ির ছোটরাও খুব সক্রিয়ভাবে পুষ্প ও পত্রচয়নে অংশগ্রহণ করতে পারে বলে শৈশব থেকেই তাদের মনে ঐতিহ্য ও ললিতকলার বিকাশ ঘটে স্বতঃস্ফূর্তভাবে। যা এই উৎসবের একটা শিক্ষণীয় দিক। এছাড়া এই উৎসব সমগ্র উত্তরাখণ্ড অর্থাৎ কুমায়ুন ও গাড়োয়াল অঞ্চলের মানুষের পরিবার ও কম‍্যুনিটির সঙ্গে এক অভ্যন্তরীণ সংযোগ গড়ে তুলতে সাহায‍্য করে।

চৌকাঠের সামনে সুদৃশ্য অলংকরণ।

বাড়ির মেয়েদের নিজের পরিবার ও প্রতিবেশী এবং আত্মীয়স্বজনের পরিবারের উন্নতি, সাফল্য প্রার্থনা উৎসবটিকে প্রাত‍্যহিক দিনযাপনের ক্ষুদ্র গণ্ডি ভেঙে এক বৃহত্তর বোধে মহিমান্বিত করে তোলে, যা শাশ্বত ভারতবর্ষের অনন্য পরিচয়বাহী। এই উৎসবকে কেন্দ্র করে উত্তরাখণ্ডের পাহাড়িয়া লোকগীতিও উত্তুঙ্গ পাহাড়ের চূড়ায় ধ্বনিত ও প্রতিধ্বনিত হয়ে, পুনরুজ্জীবিত হয়ে ওঠে এখানকার মানুষজনের মত। এইভাবে একটি মূলত উৎকৃষ্ট কর্ষণ ও ফলনের জন্য প্রার্থনাবাহী উৎসব ফুল দেই, বসন্তের রঙিন ফুলের স‌ংযোজিত নিবেদনে, মণ্ডলকলার নৈপুণ্যে সমগ্র উত্তরাখণ্ডে এক মনোমুগ্ধকর বিস্তৃত উদার পরিমণ্ডল তৈরি করে উৎসবটিকে সর্বাঙ্গীন সুন্দর ও সাফল্যমণ্ডিত করে তোলে।

‘ফুল দেই, ছম্মা দেই…’।

উত্তরাখণ্ডে চৈত্র মাসে অনুষ্ঠিত আর একটি বড় উৎসব হল ঘোঘা মাতা উৎসব। এটি উত্তরাখণ্ডের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন রূপে অনুষ্ঠিত হলেও উৎসবের কয়েকটি মূল বিষয় এক। আসলে উত্তরাখণ্ডের জঙ্গল, উপত্যকা, বুগিয়াল চৈত্রমাসে ফুলে ফুলে ভরে যায়। তাই ঘোঘা মাতা উৎসবেও ফুলের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। দেরাদুনের গভর্নর হাউসে যেমন জাঁকজমকের সঙ্গে ফুল দেই উৎসব পালিত হয়, তেমনই আবার শৈবতীর্থ কেদারনাথধাম স‌ংলগ্ন অঞ্চলে অর্থাৎ রুদ্রপ্রয়াগে অনেক বড় করে অনুষ্ঠিত হয় ঘোঘা মাতা উৎসব।

পুরাণ মতে, বহু যুগ আগে পার্বতীমাতা দেবাদিদেব মহাদেবের কাছে তাঁর পিতৃগৃহে গিয়ে কিছুদিন থাকার জন্য অনুমতি চান। কিন্তু মহাদেব এই আর্জি উপেক্ষা করেন। এর ফলে দেবী পার্বতী অত্যন্ত হতাশ হন এবং শেষপর্যন্ত স্বামীর অনুমতি ছাড়াই তিনি তাঁর জন্মস্থানে যাওয়ার জন্য র‌ওনা হন। স্ত্রীর এই কাজে ক্রুদ্ধ মহাদেব তখন নিজের রূপ পরিবর্তিত করে এক অসুরের রূপ ধারণ করেন এবং পার্বতীমাতা যখন তাঁর জন্মস্থানে যেতে চেষ্টা করেন তখন সেই অসুরের রূপধারী মহাদেব তাঁকে বারবার ভয় দেখিয়ে বাধা দিতে থাকেন। শেষপর্যন্ত দেবী পার্বতী ফিরে যাবার জন্য মনস্থির করেন। ফিরে আসার সময় মাঝপথে তার খুব খিদে পায়, কিন্তু সামনে কিছু না পেয়ে বরফখণ্ড ভক্ষণ করেন। এই সময় দেবী পার্বতী ন’মাসের গর্ভবতী ছিলেন আর ওই সময়েই হঠাৎ করে তিনি এক ‘ঘোঘা’ অর্থাৎ জড়বুদ্ধিসম্পন্ন সন্তানের জন্ম দেন। মহাদেব এসব জেনেও যখন দেবী পার্বতী ফিরে আসার পরে তাঁর ভ্রমণ অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানতে চান, তখন দেবী পার্বতীর ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যায় আর তখনই তিনি যে তুষারখণ্ড ভক্ষণ করেছিলেন, তা বমি করে দিয়ে, স্বামী মহাদেবের ওপর অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হয়ে তাঁর জন্মস্থানে গিয়ে বসবাস করতে শুরু করেন। স্ত্রীর বিচ্ছেদে মহাদেব নিজের ভুল বুঝতে পারেন, তিনি দেবী পার্বতীর জন্মস্থানে গিয়ে দেবীর রাগ কমানোর জন্য তাঁর পুজো করতে শুরু করেন এবং আটদিন পরে দেবী পার্বতীর রাগ কমে ও তিনি আবার খুশিমনে স্বামী মহাদেবের সঙ্গে ফিরে যান। এই লোককাহিনিকে মনে রেখে উত্তরাখণ্ডে চৈত্রমাসের প্রথমদিন থেকে শুরু করে আটদিন ঘোঘা মাতার পূজা করা হয়।

পালকিবাহকেরা।

সাতদিন ধরে একটি কাঠের তৈরি পালকিকে ফুল দিয়ে সাজিয়ে তার মধ‍্যে একটি বস্ত্র রেখে কাঁধে করে সারা গ্রামের প্রতিটি বাড়ির প্রবেশদ্বারে ঘোরানো হয়, এই সময় গৃহস্থ বাড়ির মেয়ে-বউরা পালকিবাহক শিশু, বালক ও কিশোর ভক্তদের চাল, ডাল, সব্জি, টাকাপয়সা দেন। অষ্টম দিনে এইসব পূজা উপাচার একত্রিত করে গ্রামবাসীরা নদীর পাড়ে কোনও মাঠে ওই পালকির পূজো করে সমবেতভাবে দেবীর প্রসাদ গ্রহণ করেন। পিওলি, বুরান (রডোড্রেনডন), পাইয়া এইসব স্থানীয় ফুলে সুসজ্জিত হয়ে তারা নাচ, গান, খাওয়াদাওয়া করে উৎসবের আনন্দ উপভোগ করেন।

চিত্র: গুগল

বাথুকাম্মা: মেয়েদের একান্ত নিজস্ব কুসুম মহোৎসব

গড়িয়া: ত্রিপুরার জনজাতিদের উৎসব আজ সর্বজনীন

4 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »
মধুপর্ণা বসু

মধুপর্ণা বসুর দুটি কবিতা

ভয় পেলে ভয়ংকর সত্যি ধারালো ছুরির মতো/ খুব সন্তর্পণে এফোঁড়ওফোঁড় তবুও অদৃশ্য ক্ষত,/ ছিঁড়ে ফেলে মধ্যদিনের ভাতকাপড়ে এলাহি ঘুম/ দিন মাস বছরের বেহিসেবি অতিক্রান্ত নিঃঝুম।/ গণনা থাক, শুধু বয়ে চলে যাওয়া স্রোতের মুখে/ কোনদিন এর উত্তর প্রকাশ্যে গাঁথা হবে জনসম্মুখে।/ ততক্ষণে তারাদের সাথে বুড়ি চাঁদ ডুবেছে এখন,/ খুঁজে নিতে পারঙ্গম দুদণ্ড লজ্জাহীন সহবাস মন।

Read More »
নন্দদুলাল চট্টোপাধ্যায়

ছোটগল্প: জমির বিষ

বিষয় মানেই বিষ। তালুকেরও হুল ছিল। বছরে দু’বার খাজনা দিতে হতো। আশ্বিন মাসে দুশ’ টাকা আর চত্তির মাসে শেষ কিস্তি আরো দুশ’ টাকা। এই চারশ’ টাকা খাজনার চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত। সে বছর বাবার ভীষণ অসুখ। বাতে একদম পঙ্গু, শয্যাশায়ী। অসুস্থ হয়ে জমিদারের ছুটি মিলল। কিন্তু খাজনা জমা দেবার ছুটি ছিল না। চত্তির মাসের শেষ তারিখে টাকা জমা না পড়লেই সম্পত্তি নিলাম হয়ে যেত।

Read More »