Search
Generic filters
Search
Generic filters
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

জিয়োর্দানো দ্য ব্রুনো: মৃত্যুঞ্জয়ী

রোমের সবচেয়ে পুরোনো জনবহুল একটি বাজার— কাম্পো দ্য ফিয়োরি। ওখানে আছে ব্রোঞ্জের একটি বিশাল উঁচু স্ট্যাচু। স্ট্যাচুটির পরনে পাদ্রীদের মতন আলখাল্লা। মূর্তির মাথাটিও আবরণে ঢাকা। কিছুটা ছায়া ছায়া। মুখমণ্ডলটি তাই স্পষ্ট নয় সেভাবে। তবু দণ্ডায়মান মূর্তির সারা শরীরে ফুটে আছে আত্মপ্রত্যয় আর বীরত্ব। মূর্তির ডান হাতে ধরা রয়েছে একটি বই। অনুমান করে নেওয়া যায়, হাতে ধরা বইটি তাঁর নিজের লেখা। একশ তিরিশ বছর আগে ১৮৮৯ সালে রোমের সিটি কাউন্সিল প্রতিষ্ঠা করে এই স্ট্যাচুটি। ইতালির ‘জোয়ান অফ আর্ক’ হিসেবে অভিহিত করা হয় মূর্তির এই মহান মানুষটিকে। স্ট্যাচুটির নিচের ফলকে লেখা আছে:

A BRVNO
IL SECOLO DA LVI DIVINATO
QUI
DOVE IL ROGO ARSE
(English: To Bruno – From the Age he Predicted – Here Where the Fire Burned)

আর কেউ নন, তিনি— জিয়োর্দানো দ্য ব্রুনো (Giordano Bruno, ১৫৪৮-১৬০০)। ইতালীয় দার্শনিক, আবিষ্কারক, নাট্যকার ও ধর্মতাত্ত্বিক। জন্ম দক্ষিণ ইতালির ভেনিসের অদূরে নোলা শহরে।

সূর্যই যে সৌরজগতের কেন্দ্র— কোপার্নিকাসের এই তত্ত্বকে সমর্থন করেছিলেন ব্রুনো। বৈজ্ঞানিক সত্য প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে প্রচলিত ধর্মমত ও সংস্কারের বিরোধিতা করেছিলেন তিনি। ধর্মীয় নেতারা মেনে নিতে পারেননি তাঁর এই বৈজ্ঞানিক যুক্তিবাদ। ঈশ্বরের বিধানকে চ্যালেঞ্জ করেছেন এই অভিযোগে পাদ্রীদের রোষের আগুনে কী নির্মম পরিণতি হয়েছিল ব্রুনোর, তা আজ আমাদের স্মরণ করার দিন।

কোপার্নিকাসের মৃত্যুর প্রায় পাঁচ-ছ’বছর পরে ব্রুনোর জন্ম হয়। গণিত ও জ্যোতির্বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করেছেন তিনি। মহাকাশ ছিল তাঁর গভীর আকর্ষণের জায়গা। না, তখনও দূরবিন আবিষ্কার হয়নি। খালিচোখে আকাশের তারাদের পর্যবেক্ষণ করেছেন রাতের পর রাত। তিনি বুঝলেন যে, কোপার্নিকাসের মতবাদই সঠিক। তিনি নিশ্চিত হলেন যে, সূর্য স্থির এবং পৃথিবী সহ অন্য গ্রহগুলি সূর্যকে কেন্দ্র করে ঘুরে চলেছে। তিনি আরও নিশ্চিত হন, মহাবিশ্ব অসীম। পৃথিবীর মত আরও অনেক সৌরজগৎ আছে মহাবিশ্বে। আরও বললেন, মহাবিশ্বের পরিবর্তন হয়।

জিয়োর্দানো দ্য ব্রুনোর মর্মরমূর্তিতে বসানো ফলক।

কিন্তু ব্রুনোর এই সমস্ত কথাই যে বাইবেল-বিরোধী ধারণা। তাই তাঁর আবিষ্কারের কথা ও ফলাফল প্রকাশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ধর্মীয় নেতাদের তীব্র ক্রোধের আগুনের আঁচ এসে লাগল ব্রুনোর গায়ে। রে রে করে উঠলেন ওরা। ব্রুনো যা বলছেন, তা শোনাও যে পাপ। এ তো ভগবানের কথার অমর্যদা করা। অবিলম্বে ব্রুনোকে শাস্তি দেওয়া স্থির হল। দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া ছাড়া ব্রুনোর আর কিছু করার ছিল না তখন। ব্রুনো দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেলেন। তবু কোথাও সেভাবে স্বাচ্ছন্দ্যে থাকতে পারলেন না। জেনিভা, জার্মানি, ফ্রান্স, ইংল্যান্ড। এসময় জ্যোতির্বিজ্ঞান, দর্শনের ভাবনা এবং কোপার্নিকাসের তত্ত্বকে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়ে বেশ কিছু পুস্তিকা প্রকাশ করলেন ব্রুনো।

ব্রুনোকে ধরতে না পেরে, দেশে দেশে চর পাঠালেন চার্চের নেতারা। তাঁকে ধরার জন্যে নানান ছলচাতুরির আশ্রয় নিলেন পাদ্রীরা। অবশেষে ব্রুনো ধরা পড়লেন। দেশের মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে বন্দি করা হল ব্রুনোকে। তারপর চলল চরম নির্যাতন। অন্ধকার কুঠুরিতে দিনের পর দিন চলল মর্মান্তিক অত্যাচার। ছাড়া পাওয়ার একটাই শর্ত দেওয়া হল। ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাওয়া। তাহলেই জীবন ফিরে পাবেন ব্রুনো।

না। মাথা নত করলেন না ব্রুনো। নিদারুণ অত্যাচার সহ্য করে সাত বছর কারাগারে কাটল। তারপর বসল ধর্মীয় বিচারসভা। বলাবাহুল্য, যা ছিল নেহাতই প্রহসন। বিচারসভার নির্দেশ অনুযায়ী চরম শাস্তি ধার্য হল ব্রুনোর। চার্চ ইনকুইজিশন তাঁর বিচার করে এবং জীবন্ত দগ্ধ করে হত্যা করার বিধান দিল। জীবন্ত অবস্থায় বেঁধে পুড়িয়ে হত্যা করা হল ব্রুনোকে।

আজ ১৭ ফেব্রুয়ারি। সেই দিনটিও ছিল ১৬০০ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি। রোমের বধ্যভূমিতে একটি মঞ্চের ওপর বেঁধে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হল ব্রুনোকে। যাতে তিনি কোনওরকম আর্তচিৎকার না করতে পারেন বা ভগবানের বিরুদ্ধে কিছু বলতে না পারেন, তাই ব্রুনোর জিভ তার দিয়ে বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। সত্যনিষ্ঠার এক জ্বলন্ত উদাহরণ জিয়োর্দানো ব্রুনোর মৃত্যু হল এইভাবে। বস্তুত তিনি মৃত্যুবরণ করেছিলেন স্বেচ্ছায়। বিজ্ঞানের জন্যে সত্যসন্ধানীর এই মৃত্যুবরণ। শহিদের মৃত্যু হয় না। মৃত্যুঞ্জয়।

ব্রুনোর শহিদ হওয়ার পরে চারশ বছর পেরিয়ে গেছে। তবু আজও তিনি বিজ্ঞান ও যুক্তিবাদী মানুষের মনে অমর হয়ে আছেন। তাঁকে আমাদের প্রণাম জানাই।

চিত্র: গুগল
5 2 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

Recent Posts

আবদুল্লাহ আল আমিন

মাহমুদ দারবিশের কবিতায় ফিলিস্তিনি মুক্তিসংগ্রাম

যুবা-তরুণ-বৃদ্ধ, বাঙালি, এশিয়ান, আফ্রিকান যারাই তাঁর কবিতা পড়েছেন, তারাই মুগ্ধ হয়েছে। তাঁর কবিতা কেবল ফিলিস্তিনি তথা আরব জাহানে জনপ্রিয় নয়, সারা বিশ্বের ভাবুক-রসিকদের তৃপ্ত করেছে তাঁর কবিতা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বাধিক পঠিত নন্দিত কবিদের একজন।

Read More »
সুজিত বসু

সুজিত বসুর কবিতা: কিছু কিছু পাপ

শৈবাল কে বলেছ তাকে, এ যে বিষম পাথরে/ সবুজ জমা, গুল্মলতা পায়ে জড়ায়, নাগিনী/ হিসিয়ে ফণা বিষের কণা উজাড় করো আদরে/ তরল হিম, নেশার ঝিম কাটে না তাতে, জাগিনি

Read More »
সাবিনা ইয়াসমিন

শিলং ঘোরা

নদীর মাঝখানে একটা মস্ত পাথরের চাঁই। তারপরে সিলেট, বাংলাদেশের শুরু। কোনও বেড়া নেই। প্রকৃতি নিজে দাঁড়িয়ে দুই পারের তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছে।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

আষাঢ়স্য প্রথম দিবস

পয়লা আষাঢ় বলতে অবধারিতভাবে যে কবিকে মনে না এসে পারে না, তিনি হলেন মহাকবি কালিদাস। তিনি তাঁর ‘মেঘদূত’ কাব্যে পয়লা আষাঢ়কে অমরত্ব দিয়ে গেছেন।

Read More »
উত্তম মাহাত

কল্পোত্তমের দুটি কবিতা

দশাধিক বছরের সূর্যোদয় মনে রেখে/ শিখেছি সংযম, শিখেছি হিসেব,/ কতটা দূরত্ব বজায় রাখলে শোনা যায়/ তোমার গুনগুন। দেখা যায়/
বাতাসের দোলায় সরে যাওয়া পাতার ফাঁকে/ জেগে ওঠা তোমার কৎবেল।// দৃষ্টি ফেরাও, পলাশের ফুলের মতো/ ফুটিয়ে রেখে অগুনতি কুঁড়ি/ দৃষ্টি ফেরাও সুগভীর খাতে/ বুঝিয়ে দাও/ তোমার স্পর্শ ছাড়া অসম্পূর্ণ আমার হাঁটাহাঁটি।

Read More »
মলয়চন্দন মুখোপাধ্যায়

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়: অনন্যতাসমূহ

বিভূতিভূষণ, বনফুল, সতীনাথ ভাদুড়ীর মতো তিনিও ডায়েরি লিখতেন। এ ডায়েরি অন্য এক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে এনে দাঁড় করায়। মদ্যাসক্ত মানিক হাসপাতালে লুকিয়ে রাখছেন মদের বোতল। ডাক্তার-নার্সকে লুকিয়ে মদ খাচ্ছেন। আর বাঁচার আকুলতায় মার্ক্সবাদী মানিক কালীর নাম জপ করছেন! তবু যদি শেষরক্ষা হত! মধুসূদন ও ঋত্বিক যেমন, ঠিক তেমন করেই অতিরিক্ত মদ্যপান তাঁর অকালমৃত্যু ডেকে আনল!

Read More »